শুক্রবার, ২৭শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ১৩ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
শুক্রবার, ২৭শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

ভেদরগঞ্জে বিধবার সম্পতি আত্মসাতের চেষ্টা,ওয়ারিশ সনদ নিয়ে তালবাহানা

ভেদরগঞ্জে বিধবার সম্পতি আত্মসাতের চেষ্টা,ওয়ারিশ সনদ নিয়ে তালবাহানা

শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জ উপজেলার মহিষার ইউনিয়ন পরিষদে (ইউপি) দেড় মাস ধর্ণা দিয়েও চেয়ারম্যানের কাছ থেকে স্বামীর মৃত্যু সনদ ও সম্পত্তির ওয়ারিশ সনদ সংগ্রহ করতে পারেননি একই ইউনিয়নের ৩ নং ওয়ার্ডের মৃত আঃ ছাত্তার রাড়ীর স্ত্রী ফাতেমা বেগম। এ বিষয়ে নানা হয়রানির শিকার হয়ে তিনি আজ সকালে ভেদরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার বরাবর লিখিত অভিযোগ দাখিল করেছেন।

ফাতেমা বেগম জানান, তার স্বামী আঃ ছাত্তার রাড়ী ২০২১ সালের ২৮ ডিসেম্বর সন্ধ্যা ৭টায় নিজ বাড়িতে ইন্তেকাল করেছেন। ফাতেমা বেগম অভিযোগ করেন, তার স্বামীর মৃত্যুর পর কোন নিকট আত্মীয় ও ছেলে সন্তান না থাকায় একটি কুচক্রী মহল তার রেখে যাওয়া সম্পত্তি আত্মসাতের নানা ষড়যন্ত্র করে আসছে। এরপর বিভিন্ন জরুরি কাজে তার স্বামীর মৃত্যু সনদ ও সম্পত্তির ওয়ারিশ সনদের প্রয়োজন হয়। ফলে প্রায় দেড় মাস পূর্বে তিনি মহিষার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হাজী মোঃ অরুণ রশিদ হাওলাদারের কাছে স্বামীর মৃত্যু সনদ ও সম্পত্তির ওয়ারিশ সনদ আনতে যান।
চেয়ারম্যান ওই সনদ দেই-দিচ্ছি করে নানা টালবাহানায় দেড় মাস পযর্ন্ত তাকে ঘুড়াচ্ছেন। চেয়ারম্যানের মতলব ভাল না দেখে অবশেষে নিরুপায় হয়ে তিনি ভেদরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর লিখিত অভিযোগ করেছেন।

জানা গেছে, বিধবা ফাতেমা বেগমের পিতার বাড়ি একই উপজেলার নারায়ণপুর ইউনিয়নে বিধায় নারায়ণপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ছালাউদ্দিন মাদবর মহিষার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হাজী অরুণ রশিদ হাওলাদারকে উক্ত সনদ দেয়ার জন্য অনুরোধ করলেও চেয়ারম্যান তা কর্ণপাত করেননি।

ভেদরগঞ্জ পৌরসভা মেয়র মোঃ আবুল বাশার চোকদার বলেন, ভুক্তভোগি ফাতেমা বেগম গত দেড় মাস ধরে তার স্বামীর মৃত্যু সনদ ও সম্পত্তির ওয়ারিশ সনদ না পেয়ে বিষয়টি আমাকে জানালে আমি মহিষার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানকে সনদ দেয়ার জন্য অনুরোধ করি। কিন্তু তাতেও তিনি সনদ প্রদান করেননি। চেয়ারম্যানদের কাছে সাধারণ নাগরিকদের এ ধরণের হয়রানি কাম্য নয় বলে তিনি জানান।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত চেয়ারম্যান হাজী মোঃ অরুণ রশিদ হাওলাদার বলেন, ওই মহিলার স্বামীর জানাজায় আমি গিয়েছিলাম। তবে সনদ দেয়ার জন্য যাচাই বাছাই করতে একটু সময় লাগে, তাই দেড়ি হচ্ছে।